ঢাকা অচলের চিন্তা করলে তাদের অচল করে দেব ঃ কাদের

ঢাকা অফিস ॥ বিএনপির সঙ্গে পাল্টাপাল্টি কোনো কর্মসূচিতে আওয়ামী লীগ না গেলেও কোনো ধরনের ‘অরাজকতা’ সৃষ্টির চেষ্টা হলে ‘জনগণকে সঙ্গে নিয়ে’ তা প্রতিহত করা হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, “যারা দেশ অচল করতে চায়, ঢাকা অচল করতে চায়, আমরা জনগণকে সঙ্গে নিয়ে তাদের অচল করে দেব।” গতকাল শুক্রবার ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে আওয়ামী লীগের এক অনুষ্ঠানে ওবায়দুল কাদেরের এই হুঁশিয়ারি আসে। বিএনপি গত মঙ্গলবার সম্মেলন করে শনিবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা করার সিদ্ধান্ত জানায়। একই দিনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলও মহানগর নাট্যমঞ্চে সমাবেশ করার পাশাপাশি ‘ঢাকা দখলে রাখার’ ঘোষণা দেয়। পাল্টাপাল্টি কর্মসূচিতে উত্তেজনা তৈরি হলে পরে ‘সংঘাত এড়াতে’ রাজপথে না থাকার সিদ্ধান্ত জানায়। শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে শুক্রবার ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে দুস্থ ও অসহায়দের মাঝে আওয়ামী লীগের ত্রাণ উপকমিটির রিকশা ও ভ্যান বিতরণ অনুষ্ঠানে এ বিষয়ে কথা বলেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, “খবর আছে বিএনপির সাগরে ঢেউ নেই। মরা গাঙ্গে ঢেউ আসে না। বিএনপির আন্দোলন নেতিবাচক রাজনীতির জন্য মরা গাঙ্গে রূপ নিয়েছে, এই গাঙ্গে আর জোয়ার আসবে না।” ২০০৬ সালের পর থেকে আর ক্ষমতায় আসতে না পারায় বিএনপি এখন ‘উম্মাদের মত প্রলাপ’ বকতে শুরু করেছে বলেও মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, “অক্টোবরে নাকি মাঠ দখল করবে; স্বপ্ন দেখছে,  রঙ্গিন স্বপ্ন। ক্ষমতা ফিরে পেতে আবারও রঙ্গিন স্বপ্ন দেখছে, মাঠ দখল করবে। বাংলাদেশ অচল করবে, ঢাকা অচল করবে।” ভোটের আগে এই মুহূর্তে আন্দোলন করার মনমানসিকতা ভোটারদের নেই-এমন দাবি করে কাদের বলেন, “আন্দোলন কখন হয়? যখন আন্দোলনের মত পরিস্থিতি বিরাজমান থাকে। কিন্তু এখন কারো মাঝে অসন্তোষ নেই। কোথাও জনমনে কোনো ক্ষোভ নেই, অশান্তি নেই। অশান্তি শুধু বিএনপিকে কেন্দ্র করে। তারা ক্ষমতা চায়। তারা ক্ষমতাকে কেন্দ্র করে লুটপাটের রাজত্ব করতে চায়।” আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, “আমরা পাল্টাপাল্টি করব না। কাউন্টার কোনো মিটিং করব না। সব জায়গায় সর্তক পাহারায় থাকবেন। কেউ যাতে নৈরাজ্য সৃষ্টি করতে না পারে। নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে পাড়ায় পাড়ায়, মহল্লায় মহল্লায়, ঘরে ঘরে, গ্রামে গ্রামে জনগণের কাছে আমরা যাব…। সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে আমরা ক্যাম্পেইন করব এবং নৌকা মার্কায় ভোট দেওয়ার জন্য অনুরোধ করব।” আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ কেন্দ্রীয় উপ কমিটির চেয়ারম্যান এ এফ এম ফখরুল ইসলাম মুন্সীর সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল-উল আলম হানিফ,  ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ কেন্দ্রীয় উপকমিটির সদস্য সচিব সুজিত রায় নন্দী বক্তব্য দেন।