খালেদা জিয়া রাজাকার, যুদ্ধপরাধী ও জঙ্গিদের নিয়ে দেশ দখল করতে চান

মিরপুরে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডের উদ্বোধনকালে তথ্যমন্ত্রী ইনু

মিরপুর প্রতিনিধি ॥ জাসদ সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এমপি বলেছেন, ‘সহায়ক সরকারের’ নামে এক ‘অস্বাভাবিক সরকারের’ দাবি তুলে বিএনপি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন বানচাল করার ষড়যন্ত্র করছে। বিএনপি একটি বিষফোড়া। বিএনপি থাকলেই রাজাকার থাকবে, জঙ্গির পুনরুত্থান ঘটবে। গতকাল বৃহস্পতিবার দিনব্যাপী কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলায় বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু আরো বলেন, ‘বিএনপি তথা খালেদা জিয়ার হাতে বাংলাদেশ নিরাপদ নয়। তিনি রাজাকার, যুদ্ধপরাধী ও জঙ্গিদের নিয়ে  দেশ দখল করতে চান। জঙ্গির সঙ্গীদের আর ক্ষমতায় যেতে দেওয়া হবে না। তাই মহাজোটের নেত্রী শেখ হাসিনাকে বলেছি, দেশের নিরাপত্তা নিশ্চিত রাখতে হলে যার যার মর্যাদা দিতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা অটুট রাখতে হলে আমাদের মধ্যে ঐক্য বজায় থাকতে হবে। দলবাজি বন্ধ ও দুর্নীতি নির্মূল করতে হবে। তাহলে সরকারের সুফল ঘরে ঘরে মানুষের কাছে পৌঁছানো সম্ভব হবে।’ এসময় মন্ত্রীর সফরসঙ্গী হিসেবে ছিলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম জামাল আহমেদ, জাসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মহাম্মদ আব্দুল্লাহ, উপজেলা জাসদের সভাপতি মহাম্মদ শরীফ, সাধারন সম্পাদক আহাম্মদ আলী, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক কারশেদ আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক আফতাব উদ্দিন, আমবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মশিউর রহমান মিলন প্রমুখ। অপরদিকে সকালে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু কুষ্টিয়া সার্কিট হাউসে দলীয় নেতা-কর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময়ের পর সাংবাদিকদের বলেন, ‘যে বিএনপি-জামায়াত এখনো ২০ দলীয় জোটের গাঁটছড়া অটুট রেখে বড় গলায় জামায়াতকে ছাড়বে না বলে কথা বলে, এই বিএনপির সঙ্গে কামাল হোসেন ও বি. চৌধুরী কীভাবে একমত হয়। এবং তারা এক মঞ্চে দাঁড়িয়ে হাসে, এটা আমাদের বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখানোর হাসি। এই হাসি পাকিস্তানের হাসি।’ জাতীয় ঐক্য প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এই ঐক্যের পেছনে কত লোক আছে কত লোক নেই, সে বিষয়ে আমার মাথাব্যথা নেই। আমি ঐক্য সম্পর্কে সতর্ক এই জন্য যে বাংলাদেশের তাবৎ ষড়যন্ত্রকারী এই ঐক্যে শামিল হয়েছে।’ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এই আইন গণমাধ্যম বা সাংবাদিকদের স্বাধীনতার হস্তক্ষেপ করার কোনো আইন না। এটা হচ্ছে ডিজিটাল যন্ত্রপাতি দিয়ে ডিজিটাল অপরাধ মোকাবিলা করার আইন। এটার সঙ্গে সাংবাদিকদের কোনো সম্পর্ক নেই।’ হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘‘যেহেতু সাংবাদিকেরা উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন, সেহেতু তাঁদের উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা এবং সমালোচনা কী, সেটা আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে  বৈঠকে মিলিত হয়ে এগুলো নিষ্পত্তি করার চেষ্টা করব। সাংবাদিক নেতা ও সম্পাদক পরিষদ যে উদ্বেগ উৎকণ্ঠা বা পরামর্শ প্রদান করছেন, সেগুলো নিয়ে চুলচেরা আলোচনা করব।’ এ সময় সেখানে জেলা জাসদের সভাপতি গোলাম মহসিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমানসহ দলীয় নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।