বোমা ফাটালেন অপু বিশ্বাস

কোলের শিশু নিয়ে প্রকাশ্যে এসে চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস দাবি করেছেন, শাকিব খানের সঙ্গে বিয়ের পর এই সন্তান হয়েছে তাদের। বছর খানেকের অজ্ঞাতবাস থেকে সম্প্রতি দেশে আসা অপু গতকঅল সোমবার নিউজ টোয়েন্টিফোরকে এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকারে বলেন, শাকিবকে বিয়ের পর গত বছরের ২৭ সেপ্টেম্বর কলকাতায় তাদের এই সন্তানের জন্ম হয়। অবন্তী বিশ্বাস অপু থেকে ধর্মান্তরিত হয়ে অপু ইসলাম খান নাম নিয়ে শাকিবকে বিয়ে করার কথা বলেছেন তিনি। তার সন্তানের নাম আব্রাহাম খান জয় বলে জানান তিনি। বাংলাদেশের এই সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় অভিনেতা শাকিব খানের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ করেন অপু। টিভিতে সাক্ষাৎকারের পর তোলপাড় শুরু হলে রাজধানীর গুলশানের নিকেতনের বাড়িতেও এনিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। এ বিষয়ে শাকিব খানের বক্তব্য জানতে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিয়ের কথা স্বীকার করলেও অপুর কাজে অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেন। আজ মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলন করবেন বলেও জানান তিনি। কয়েক মাস আগে দেশে আসার পর চলচ্চিত্রে শাকিবের সঙ্গে জুটি নিয়ে আরেক অভিনেত্রী শবনম ইয়াসমিন বুবলির সঙ্গে দ্বন্দ্বে জড়ান অপু।
এর পরপরই শাকিবের সঙ্গে নিজের বিয়ের কথা বললেন অপু, যা বোমা ফাটানোর মতো খবর হিসেবে দেখছেন ঢাকার চলচ্চিত্র অঙ্গন সংশ্লিষ্টরা। বগুড়ার মেয়ে অপু দাবি করেন, গুলশানে শাকিব খানের বাসায় ২০০৮ সালে তাদের বিয়ে হয়। কাজী আসেন শাকিবের বাড়ি গোপালগঞ্জ থেকে। বিয়ের সময় শাকিবের ভাই এবং এক প্রযোজকও উপস্থিত ছিলেন। বিয়ে ও সন্তান হওয়ার খবর শাকিবের কারণেই চেপে রেখেছিলেন বলে দাবি করেন অপু। তবে নানা সময়ে শাকিব সন্তানের জন্য অর্থ দিয়েছেন বলে জানান তিনি।
২০০৬ সালে ‘কোটি টাকার কাবিন’ চলচ্চিত্রের মধ্য দিয়ে শাকিব-অপুর জুটি গড়ে ওঠে। তারপর বেশ কয়েকটি ব্যবসা সফল চলচ্চিত্র আসে তাদের জুটির। তাদের প্রেম-বিয়ের গুঞ্জনও ছড়ায় তখন। কিন্তু সব অস্বীকার করে আসছিলেন তারা।
একটি টিভিতে গতকাল সোমবার বিস্ফোরক সাক্ষাৎকার দেওয়ার পর ঢাকার নিকেতনের বাসায় অভিনেত্রী অপু বিশ্বাস। তিনি বলেছেন, ২০০৮ সালে শাকিব খানের সঙ্গে বিয়ের পর গত বছর তাদের সন্তান হয়েছে। গত বছরের শুরুর দিকে আকস্মিকভাবে চলচ্চিত্র থেকে উধাও হয়ে যান অপু।
অপু বলেন, “আমি ১০ মাস আড়ালে গেছি। আমাকে নিয়ে অনেক বিদ্রুপ মন্তব্য হয়েছে, আমি গায়ে লাগাই নাই। আমার শাকিবকে ঠিক রাখতে হবে।”
শাকিবের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়ে অপু কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, “প্রতিনিয়ত সে ঠকায়া গেছে। আমাকে বিয়ে করেছে, বলেছে লুকায়া রাখ। আমি প্রত্যেকটা মুহূর্ত লুকায়া রাখছি। প্রতি মুহূর্তে সাপোর্ট করে গেছি।
“আমি প্রেগন্যান্ট হয়েছি। আমার প্রেমের ছবি বসগিরি। সেই ছবি বাদ দিয়ে আমি এক মুহুর্ত চিন্তা না করে চলে গিয়েছি। আমি ঢাকায় আসছি আজকে পাঁচ মাস হয়ে গেছে। কেউ বলতে পারবে না যে আমি কারও সঙ্গে এভাবে কথা বলেছি। কিন্ত কেন শাকিব আমাকে ছোট করল?”
বুবলির কারণেই এখন মুখ খুলেছেন কি না- সাংবাদিকদের প্রশ্নে অপু বলেন, “বুবলি আমার কাছে ফ্যাক্ট কেন? আমাদের বিয়ে হয়েছে আট বছর হল, আমার ছেলে ছয় মাসে যাচ্ছে।”
সন্তানের জন্মের প্রসঙ্গে অপু বলেন, “আমার বাচ্চা হয়েছে দেশের বাইরে কলকাতায়। শাকিব তখন শুটিংয়ের জন্য দেশে ছিল। বাচ্চাকে আমি অনেক স্ট্রাগল করে জন্ম দিছি। “দেশে আসার পর দেখা করেছে। আমাকে সাপোর্ট করে নাই। আমার পাঁচ মাস হয়ে দেশে আসছি। বাংলাদেশে আসার দুমাস পরে দেখা করতে গিয়েছে। ছেলের তখন তিন মাস।” সন্তান দেখে শাকিবের প্রতিক্রিয়া কী ছিল- প্রশ্নে অপু বলেন, “বলেছে ‘হ্যাপি সে’, কিন্তু ঘরের মধ্যে। “ওদের ফ্যামিলির সবাই জানে। আমিতো ওদের বাসায়ও ছিলাম। বাচ্চা আছে, ওর ফ্যামিলি থেকে সবাই দেখে গেছে।” এখন আসে কি না- প্রশ্নে তিনি বলেন, “দেখে যায়। কথা বলে।”
শাকিবের ক্যারিয়ারের কথা ভেবে বিয়ে-সন্তান সব লুকিয়ে রেখেছিলেন দাবি করে অপু বলেন, “আমি নিজে অনেক সাফার করছি। ওর মা আছে, ওর বোন আছে। তারাও তো মেয়ে মানুষ। তাদেরও সন্তান আছে। তাদের জিজ্ঞেস করুন, তারা সাফার করে কি না?
“আমার অন্যায় কি এটা যে আমি সিনেমার নায়িকা। আমি শাকিবকে অনেক সাপোর্ট করেছি। এটা কি আমার অন্যায়? আমি চাইছি যে শাকিবের ক্যারিয়ার ভালো হোক, কিন্তু আমাকে ছোট করে নয়। আমার ক্যারিয়ার আমি চিন্তা করিনি।”
এখনই কেন বিয়ে ও সন্তানের খবর প্রকাশ করলেন- জানতে চাইলে অপু সাংবাদিকদের বলেন, “আর কিছুদিন পর তার (ছেলের) এক বছর হবে, আমার তার বার্থ ডে করতে হবে না? তার তো একটা সামাজিক অবস্থান পেতে হবে।
“তার বার্থডের সময়ে যদি আপনাদের বলি, এই সময়ে বাচ্চাকে ঘিরে যদি অনেকগুলো ঘটনা ঘটে যায়, সে জন্য আমি সবকিছু ভেবেচিন্তে এই সময়টা বেছে নিয়েছি। তবে আমি ভীষণ হ্যাপি। কারণ বাবা তার ছেলেকে নেবে।”
ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়ে অপু বলেন, “আমার ওকে নিয়ে কোনো অভিযোগ নেই। যেহেতু আমাদের সন্তান। তাকে নিয়ে সুখে শান্তিতে থাকতে চাই। আমি অন্যায়কারী, একটা সন্তান তো অন্যায়কারী না। তার জন্য তার মর্যাদা আমি মা হয়ে দিতে চাই।” শাকিবের বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ করলেও আইনি পদক্ষেপ নেবেন না বলে জানান অপু। “আমি এখনও শাকিবের ভালো চাই, ভবিষ্যতেও শাকিবের ভালো চাই। কারণ সে আমার স্বামী। সবচেয়ে বড় কথা সে আমার বাচ্চার বাবা। সবাই সবার পরিবারের ভালো চায়। আমিও আমার পরিবারের ভাল চাই।”